বিটকয়েন কি | এটি কিভাবে কাজ করে | এবং কিভাবে উপার্জন করা যায়

প্রিয় বন্ধুরা তোমরা সবাই কেমন আছো আশা করি নিশ্চয়ই ভালো আছো আজ তোমাদের মাঝে এই পোস্টে আলোচনা করব বিটকয়েন নিয়ে। বিটকয়েন কি, কিভাবে কাজ করে, কোথায় রাখা হয়, এই সব নিয়ে তোমার মনে অনেক প্রশ্ন থাকে বিটকয়েন নিয়ে। বন্ধুরা বর্তমানে ইন্টারনেট এর কারণে আজ সবার জীবন অনেক সহজ হয়ে গেছে।

বর্তমানে এখন ইন্টারনেটে সব ধরনের তথ্য থেকে শুরু করে কেনাকাটা, টিকিট বুকিং, অনলাইন কেনাকাটা ইত্যাদি সব ধরনের তথ্য পাওয়া যায় ইন্টারনেটের কারনে।

আজকাল বর্তমানে ইন্টারনেটের সাহায্যে টাকা ইনকাম করা সম্ভব হয়েছে। এখন আমাদের সবার জন্য ঘরে বসে ইন্টারনেট থেকে টাকা ইনকাম করার অনেক উপায় রয়েছে। সেই উপায়গুলির মধ্যে একটি হল বিটকয়েন, যার কারণে আমরা প্রচুর টাকা ইনকাম করতে পারি।

আপনারা অনেকেই নিশ্চয়ই বিটকয়েন সম্পর্কে শুনছেন বা শুনে এসেছেন এবং যারা বিটকয়েন সম্পর্কে কিছু জানেন না, আজ তারা  এই পোস্টের মাধ্যমে বিটকয়েন সম্পর্কে জানতে পারবেন। হ্যাঁ, আজ আমি আপনাদেরকে বিটকয়েন সম্পর্কে বলব।

বিটকয়েন কি | What is Bitcoin in Bengali

বিটকয়েন একটি ভার্চুয়াল মুদ্রা যেমন বাংলাদেশি তে আমরা বলি টাকা। অন্যান্য মুদ্রার মতোই রুপি, ডলার ইত্যাদি, একইভাবে বিটকয়েনও একটি ডিজিটাল মুদ্রা। এটি অন্যান্য সব মুদ্রার থেকে সম্পূর্ণ আলাদা। কারণ আমরা বাংলাদেশের টাকার মত বিটকয়েন সবাই দেখতে বা স্পর্শ করতে পারি না।

আমরা শুধুমাত্র একটি অনলাইন মানিব্যাগে বিটকয়েন সংরক্ষণ করতে পারি। বিটকয়েন 2009 সালে সাতোশি নাকামোটো আবিষ্কার করেছিলেন এবং তারপর থেকে বিটকয়েন এর জনপ্রিয়তা বাড়ছে। বিটকয়েন একটি বিকেন্দ্রীভূত মুদ্রা, যার অর্থ এটি নিয়ন্ত্রণ করার জন্য কোন ব্যাংক বা কর্তৃপক্ষ বা সরকার নেই, অর্থাৎ এর মালিক নেই এবং কেউ নয়।

যে কেউ বিটকয়েন ব্যবহার করতে পারে যেমন আমরা সবাই ইন্টারনেট ব্যবহার করি এবং এর কোন মালিক নেই, যেমন ইন্টারনেটের কোন মালিক নেই তেমনি ও একইভাবে বিটকয়েনও কোন মালিক নেই।

বিটকয়েন কেন ব্যবহার করা হয়?

আমরা অনেকেই অনলাইনে পেমেন্ট করতে বা যেকোনো ধরনের লেনদেন করতে বিটকয়েন এর ব্যবহার করতে পারি। বিটকয়েন পিয়ার টু পিয়ার নেটওয়ার্ক ভিত্তিক কাজ করে থাকে। যার অর্থ মানুষ অনলাইনে বা সহজেই একে অপরের সাথে সরাসরি কোন ব্যাংক, ক্রেডিট কার্ড বা কোন কোম্পানির মাধ্যমে লেনদেন করতে পারে।

বিটকয়েন লেনদেনের ব্যবহার করার জন্য সবচেয়ে দ্রুত এবং সবচেয়ে দক্ষ বলে বিবেচিত হয়। আজকাল অনেকেই অনলাইন ডেভেলপার, উদ্যোক্তা, অলাভজনক সংস্থা ইত্যাদি বিটকয়েন গ্রহণ করে আসছে এবং এই কারণে বিটকয়েন সারা বিশ্বে বৈশ্বিক অর্থ প্রদানের জন্য ব্যবহৃত হচ্ছে।

আমরা যেমন অন্যান্য মুদ্রা ব্যবহার করে অনলাইনে লেনদেন করে থাকি, তখন আমাদের ব্যাংকের পেমেন্ট প্রক্রিয়া অনুসরণ করতে হবে, তবেই আমরা পেমেন্ট করতে সক্ষম হয় এবং আমাদের দ্বারা করা প্রতিটি লেনদেনের হিসাব আমাদের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে উপস্থিত থাকে যাতে লেনদেনটি এটি সনাক্ত করা যায়।

কোথায় এবং কত টাকা ব্যয় করা হয়েছে, কিন্তু কেউ বিটকয়েনের মালিক নয়, তাই এটি দিয়ে করা লেনদেন গুলি একটি পাবলিক লেজার (অ্যাকাউন্ট) এ রেকর্ড করা হয় যাকে বিটকয়েন “ব্লকচেইন” বলা হয়।

সেখানে, বর্তমানে বিটকয়েন দিয়ে করা সমস্ত লেনদেনের বিবরণ সংরক্ষণ করা হয় এবং একই ব্লকচেইন লেনদেন হয়েছে কি না তার প্রমাণ।

বিটকয়েনের আজকের হার

বিশ্ববাজারে আজকের দিনে বিটকয়েনের মূল্য প্রায় 11,855 ডলার, মানে একটি বিটকয়েনের মূল্য 8,85,000। এর মান কম বেশি হতে থাকে, কারণ এটি নিয়ন্ত্রণ করার কোন কর্তৃপক্ষ নেই, তাই এর চাহিদা অনুযায়ী এর মান পরিবর্তন হতে থাকে।

বিটকয়েন মানিব্যাগ কি?

বন্ধুরা, আমরা শুধুমাত্র ইলেকট্রনিক ভাবে বিটকয়েন সংরক্ষণ করতে পারি এবং এটি রাখার জন্য একটি বিটকয়েন মানিব্যাগ আমাদের প্রয়োজন। অনেক ধরনের বিটকয়েন ওয়ালেট আছে যেমন ডেস্কটপ ওয়ালেট, মোবাইল ওয়ালেট, অনলাইন / ওয়েব ভিত্তিক ওয়ালেট, হার্ডওয়্যার ওয়ালেট, এই ওয়ালেটগুলির মধ্যে একটি ব্যবহার করে, আমাদের এতে একাউন্ট তৈরি করতে হবে।

এই মানিব্যাগটি আমাদের একটি ঠিকানা আকারে একটি অনন্য আইডি দেবে, যেমন আপনি যদি কোথাও থেকে বিটকয়েন উপার্জন করেছেন এবং আপনাকে এটি আপনার অ্যাকাউন্টে সংরক্ষণ করতে হবে, তাহলে আপনার সেই ঠিকানাটি সেখানে প্রয়োজন হবে এবং এর সাহায্যে আপনারা বিটকয়েন স্থানান্তর করতে পারেন আপনার অ্যাকাউন্টে। আপনারা বিটকয়েন মানিব্যাগে রাখতে পারেন।

বিটকয়েন কি
বিটকয়েন কি

তা ছাড়া, যদি আপনারা বিটকয়েন কিনতে বা বিক্রি করতে চান, তাহলে আপনার একটি বিটকয়েন ওয়ালেট দরকার এবং তার পরে আপনি যে বিটকয়েন বিক্রি করেন তার বিনিময়ে আপনারা যে টাকা পাবেন, আপনারা বিটকয়েন ওয়ালেটের মাধ্যমে এটি আপনার ব্যাংক অ্যাকাউন্টে স্থানান্তর করতে পারেন।

বিটকয়েন কিভাবে আয় করা যায়?

বন্ধুরা, আমরা তিনটি উপায়ে বিটকয়েন উপার্জন করতে পারি। এখানে আমরা কিভাবে বিটকয়েন একাউন্ট তৈরি করব এবং করতে হয় তার সম্পূর্ণ তথ্য দিয়েছি।

আরো পড়ুন..

1.বন্ধুরা, প্রথম উপায় হল যদি আপনার যদি টাকা থাকে, তাহলে আপনি সরাসরি $ 999 প্রদান করে একটি বিটকয়েন কিনতে পারেন। এমনও নয় যে আপনি যদি বিটকয়েন কিনতে চান, তাহলে আপনাকে সম্পূর্ণ $ 999 দিতে হবে, চাইলে আপনি বিটকয়েনের ক্ষুদ্রতম ইউনিট “সতোশি” কিনতে পারেন।

বন্ধুরা যেমন, আমাদের ভারতে 1 রুপিতে 100 পয়সা আছে, ঠিক তেমনি 1 বিটকয়েনে 100 মিলিয়ন সতোশি আছে, তাই আপনি যদি চান, বন্ধুরা আপনারা অল্প পরিমাণে বিটকয়েন সতোশি কিনে ধীরে ধীরে 1 বা তার বেশি বিটকয়েন জমা করতে পারবেন। যখন আপনার কাছে বিটকয়েন থাকবে এবং এর দাম বৃদ্ধি পাবে, তখন আপনি এটি বিক্রি করে আরো টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

2. বন্ধুরা, আরেকটি উপায় হল যে আপনি যদি অনলাইনে কারও কাছে কোন পণ্য বিক্রি করেন এবং যদি সেই ক্রেতার কাছে বিটকয়েন উপস্থিত থাকে, তাহলে আপনি টাকার বিনিময়ে বিটকয়েন নিতে পারবেন, এক্ষেত্রে আপনি সেই পণ্যগুলি তাদের কাছেও বিক্রি করতে পারবেন এবং করবেন এবং আপনি বিটকয়েনও পাবেন যা আপনার বিটকয়েন ওয়ালেটে সংরক্ষিত থাকবে।

যদি আপনি চান, আপনি পরবর্তীতে সেই বিটকয়েন অন্য ব্যক্তির কাছে উচ্চ মূল্যে বিক্রি করেও লাভ হতে পারবেন।

3. বন্ধুরা, তৃতীয় উপায় হল বিটকয়েন মাইনিং। এর জন্য আমাদের প্রয়োজন হবে উচ্চ গতির প্রসেসর সহ একটি কম্পিউটার যার হার্ডওয়্যারও ভালো হওয়া উচিত। আমরা শুধুমাত্র অনলাইন পেমেন্টের জন্য বিটকয়েন ব্যবহার করি এবং যখন কেউ বিটকয়েন দিয়ে অর্থ প্রদান করে তখন সেই লেনদেনটি যাচাই করা হয়।

যারা তাদের যাচাই করে, আমরা তাদের খনি বলি এবং সেই খনির উচ্চ কর্মক্ষম কম্পিউটার এবং জিপিইউ আছে এবং তারা এর মাধ্যমে লেনদেন যাচাই করে। তারা লেনদেন সঠিক কিনা তা যাচাই করে বা এতে কোনো ধরনের হেরফের হয়েছে কিনা। এই যাচাইয়ের পরিবর্তে, তারা পুরস্কার হিসেবে কিছু বিটকয়েন পায় এবং এভাবে নতুন বিটকয়েন বাজারে আসে।

যে কেউ এটি অন্যান্য সব দেশ থেকে এই কাজটি করতে পারে, এর জন্য উচ্চ গতির প্রসেসর সহ একটি কম্পিউটার প্রয়োজন, যা কেনার জন্য প্রত্যেকের বাজেটে নেই।

প্রতিটি দেশে যেমন বছরে একটি মুদ্রা মুদ্রণ করার একটি সীমা রয়েছে যা আপনি বছরে এতগুলি নোট মুদ্রণ করতে পারেন, একইভাবে বিটকয়েনের কিছু সীমাবদ্ধতা রয়েছে এবং ২২ মিলিয়নেরও বেশি বিটকয়েন বাজারে প্রবেশ করতে পারে না। অর্থাৎ, বিটকয়েনের সীমা মাত্র ২২ মিলিয়ন, এর চেয়ে বেশি বিটকয়েন কখনও পাওয়া যাবে না।

এখন কথা বলছি, প্রায় ১৪ মিলিয়ন বিটকয়েন বাজারে এসেছে এবং নতুন বিটকয়েনগুলি এখন খনির মাধ্যমে আসবে।

বিটকয়েন ব্যবহারের সুবিধা কি?

১. এখানে আপনার লেনদেনের ফি ক্রেডিট কার্ড এবং ডেবিট কার্ডের মাধ্যমে পরিশোধ করার চেয়ে অনেক কম।

২. আপনি বিশ্বের যে কোন জায়গায় এবং যে কোন সময় কোন ঝামেলা ছাড়াই বিটকয়েন পাঠাতে পারেন।

৩. এখানে বিটকয়েনের কোন একাউন্ট ব্লক নেই, যেমন মাঝে মাঝে কোন কারণে ব্যাংক আমাদের ক্রেডিট বা ডেবিট কার্ড ব্লক করে দেয়, তাহলে সেই সমস্যা এখানে ঘটে না।

৪. বিটকয়েনের লেনদেন প্রক্রিয়ার কোন সরকার বা কর্তৃপক্ষ যদি আপনার উপর নজর না রাখে, তাহলে অনেক লোক আছে যারা এটিকে ভুল কাজেও ব্যবহার করে, তাহলে এটি তাদের জন্য উপকারী।

বিটকয়েন ব্যবহারের অসুবিধা কি?

১. এখানে বিটকয়েন নিয়ন্ত্রণ করার জন্য কোন কর্তৃপক্ষ, ব্যাংক বা সরকার নেই, তাই এই কারণে, বিটকয়েনের দামে অনেক ওঠানামা হয়, তারপর এটি কিছুটা ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে ওঠে।

২. যদি আপনার অ্যাকাউন্ট কখনো হ্যাক হয়ে যায়। তাহলে আপনি আপনার সমস্ত বিটকয়েন হারাবেন এবং এটিকে ফিরিয়ে আনা যাবে না, কেউ আপনাকে এই ব্যাপারে সাহায্য করতে পারবে না।

কিভাবে বিটকয়েন কিনবো?

বন্ধুরা, আপনারা সোনার মত বিটকয়েন কিনতে পারেন, সেটাও ভারতীয় বা বাংলাদেশি মুদ্রায়। তাই আসুন আমরা জানি যে ভারতে এমন ওয়েবসাইট আছে যেখান থেকে আমরা খুব সহজেই বিটকয়েন কিনতে পারবেন, সেটাও আপনাদের নিজস্ব মুদ্রায়।

এখানে এই ওয়েবসাইটগুলিতে, আপনি সহজেই তাদের ন্যায্য মূল্য দেখতে পারেন, সেটাও রিয়েল টাইমে। বিটকয়েন কিভাবে কিনবেন সে সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য।

  •  Wazirx
  • Unocoin
  • ZebPay

Wazirx

ওয়াজিরক্স বর্তমানে ভারতে সবচেয়ে পছন্দের এবং সর্বাধিক ব্যবহৃত ক্রিপ্টোকারেন্সি এক্সচেঞ্জ। এতে, যে কেউ খুব সহজেই ক্রিপ্টো কারেন্সি ক্রয় -বিক্রয় করতে পারে। একই সময়ে, এর UI ব্যবহার করার জন্য খুব সুন্দর এবং স্বজ্ঞাত। একই সময়ে, আপনি এতে অনেক নতুন বৈশিষ্ট্য দেখতে পাবেন।

বৈশিষ্ট্য:

1. প্ল্যাটফর্ম জুড়ে অ্যাক্সেসযোগ্য – আপনি অনেক বিভিন্ন প্ল্যাটফর্মে ওয়াজিরএক্স ট্রেডিং প্ল্যাটফর্ম অ্যাক্সেস করতে পারেন। সেটা ওয়েব, অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোন, অ্যাপল আইওএস মোবাইল, উইন্ডোজ এবং ম্যাক সিস্টেম হোক।

2. ক্রিপ্টোকারেন্সির পরিসর – এতে আপনি USDT এর সাথে প্রায় 100+ ক্রিপ্টোকারেন্সি ট্রেড করতে পারেন। USDT আসলে একটি Tether USD মুদ্রা যা 1: 1 মার্কিন ডলার দ্বারা সমর্থিত।

3. গতি লেনদেন – তাদের প্ল্যাটফর্মটি খুব স্থিতিশীল এবং এটি এমন ক্ষমতা রাখে যে এটি সহজেই কোটি কোটি টাকার লেনদেন সহজেই পরিচালনা করতে পারে।

কিভাবে কিনবো

বন্ধুরা, আপনারা যদি বিটকয়েন বা অন্য কোন ক্রিপ্টো কারেন্সি কিনতে চান, তাহলে আপনারা উজিরক্স এর ওয়েবসাইটে গিয়ে এটি কিনতে পারেন।

দ্রষ্টব্য: – যদি আপনি রেফারেল কোড চান, তাহলে অবশ্যই “x62d4j95” ব্যবহার করুন।

Unocoin

Unocoin একটি খুব বন্ধুত্বপূর্ণ ওয়েবসাইট যা যে কেউ ব্যবহার করতে পারে। এর মাধ্যমে আপনারা খুব সহজেই বিটকয়েন ক্রয় -বিক্রয় করতে পারবেন। Unocoin এর অনেকগুলি বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা এটি অন্যদের থেকে আলাদা করে তোলে।

বৈশিষ্ট্য:

1. শূন্য % ফি – Unocoin গ্রাহকদের পেমেন্ট পদ্ধতি হিসাবে বিটকয়েন গ্রহণের জন্য কোন ফি নেওয়া হয় না।

2. সহজ একত্রীকরণ – আপনি সহজেই Unocoin এর সাথে আপনার ব্যবসাকে সংহত করতে পারেন।

3. 0% অস্থিরতার ঝুঁকি – যদি বিটকয়েনের দামে কিছু ওঠানামা হয়, তাহলে আপনি বিটকয়েন রাখতে পারেন অথবা আপনি তাৎক্ষণিকভাবে বিক্রি করতে পারেন।

4. কোন চার্জব্যাক নেই – আপনি যদি Unocoin ব্যবহার করেন তাহলে আপনাকে কোন চার্জ ফেরত দিতে হবে না।

5. ওটিসি ট্রেডিং (কাউন্টার ওভার)

6. বিটকয়েন অটো সেল

7. নেটকি – আপনি আপনাদের নিজের বিটকয়েন ঠিকানা তৈরি করতে পারেন যা যে কেউ পড়তে পারে

8. আরো নিরাপত্তার জন্য 2 ধাপের প্রমাণীকরণ

কিভাবে কিনবো

আপনি যদি বিটকয়েন কিনতে চান, তাহলে ইউনোকয়েনের ওয়েবসাইটে গিয়ে এটি কিনতে পারেন।

দ্রষ্টব্য: আপনি যদি রেফারেল কোড চান, তাহলে অবশ্যই “U-124697” ব্যবহার করুন যাতে আপনি সহজেই 200/-টাকার বিটকয়েন পেতে পারেন।

ZebPay

Zebpay একটি খুব ব্যবহারকারী বান্ধব ওয়েবসাইট যা থেকে আপনারা সহজেই বিটকয়েন কিনতে পারবেন। Zebpay অনেক বিক্রেতার অ্যাক্সেস আছে যাতে এটি আরও সুবিধা প্রদান করে।

বৈশিষ্ট্য:

1. আপনি বিটকয়েনের সাহায্যে আপনার মোবাইল এবং DTH- এও টপ -আপ পূরণ করতে পারেন।

2. আপনি আমাজন, ফ্লিপকার্ট এবং MakeMyTrip থেকে ভাউচার কিনতে পারেন যাতে আপনি 10%পর্যন্ত সঞ্চয় করতে পারেন।

3. দ্রুততম উপায় যার মাধ্যমে আপনি বিটকয়েন কিনতে পারেন।

4. এটি খুব নিরাপদ।

5. বাজারে সর্বনিম্ন মূল্য।

6. আপনি অ্যাপ ব্যবহার করে মোবাইল থেকেও কিনতে পারেন।

আপনারা কিভাবে কিনবেন

আপনি যদি বিটকয়েন কিনতে চান তাহলে জেবপে এর অ্যান্ড্রয়েড এপ্লিকেশনে গিয়ে কিনতে পারেন।

দ্রষ্টব্য: যদি আপনি রেফারেল কোড চান, তাহলে অবশ্যই “REF77839482” ব্যবহার করুন যাতে আপনি সহজেই 100/-টাকার বিটকয়েন পেতে পারেন।

আমাদের কথা,

বন্ধুরা, আমি আশা করি আপনি অবশ্যই এই আর্টিকেলটি পছন্দ করেছেন (বিটকয়েন কি, এটি কিভাবে কাজ করে এবং কিভাবে উপার্জন করা যায়)। আমি সব সময় এই কামনা করি যে আপনি সর্বদা সঠিক তথ্য পান।

Leave a Comment