অনলাইনে আয় বিকাশে পেমেন্ট 2021

ইনকাম করতে কে না চায়। আর তা যদি হয় ঘরে বসেই তাহলে তো কথাই নেই। হ্যা, বলছি অনলাইন ইনকামের কথা যার মাধ্যমে ঘরে বসেই ইনকাম করতে পারবেন। তবে এখানে কি কাজ করছেন বা কোথায় কাজ করছেন এবং পেমেন্ট মেথড কি এ বিষয়গুলোর উপর নজর দিতে হবে আপনাকে।

আর এ সব কিছুর কথা মাথায় রেখেই যখন সার্চ করেন ‘অনলাইন ইনকাম বিকাশ পেমেন্ট’ তখন হাজারো সাইট আপনার সামনে হাজির হয়। এর মধ্যে সবগুলোই কিন্তু আপনার প্রয়োজনের নয়।

কিছু সাইট আছে যারা শুধু আপনার আকর্ষণ পেতে চায় আর তাই লোভনীয় থাম্বনেইল ও টাইটেল দিয়ে থাকে। আবার কিছু আছে সত্যি। কিন্তু আপনি যখন খুজতে যাবেন তখন বেশিরভাগই পাবেন লোভনীয় থাম্বনেইলসহ যার মধ্যে কিছুই নেই। যার কারণ আপনি অনেকটাই নিরুৎসাহিত হয়ে যেতে পারেন।

তবে চিন্তা নেই আজকে আপনার জন্য থাকছে সেরা কয়েকটি ইনকাম সাইট এবং প্রক্রিয়া যার মাধ্যমে ইনকাম করে টাকা তুলতে পারবেন বিকাশে।

অনলাইনে আয় বিকাশে পেমেন্ট 2021
অনলাইনে আয় বিকাশে পেমেন্ট 2021

চলুন জেনে আসি অনলাইনে আয় করার সাইটগুলো  যারা বিকাশে/রকেটে পেমেন্ট করে-

jit.com.bd (জে-আইটি)

অনলাইনে আয় করে বিকাশে পেমেন্ট নেওয়ার মতো বাংলাদেশের  যেসকল ওয়েবসাইটগুলো রয়েছে তাদের মধ্যে প্রথমেই যে সাইটে আসে সেটি হল জে-আইটি (jit.com.bd)।

আপনারা যদি ঘরে বসে বাংলা লিখে আয় করতে চান তাহলে সবচেয়ে ভালো এই ওয়েবসাইটটি। আর্টিকেল লেখা ছাড়াও এই ওয়েবসাইটটিতে আরও বেশ কিছু ফিচার রয়েছে যেগুলো থেকে অনলাইনে আয় করা যায়।

জে-আইটি (jit.com.bd) ওয়েবসাইটটি থেকে একজন ইউজার যত ইচ্ছা তাই করতে পারবে। নিয়ম মেনে কাজ করলে একজন ইউজার সর্বনিম্ন দৈনিক দুই থেকে তিনশ টাকা ইনকাম করতে পারে।

চলুন জেনে নেই জে-আইটি (jit.com.bd) থেকে কিভাবে আয় করা যায়ঃ

  • জে-আইটি (jit.com.bd) ওয়েবসাইট থেকে আর্টিকেল লিখে আয় করা যায়। এই ওয়েবসাইটটি একটি আর্টিকেল এর জন্য কোয়ালিটির উপর নির্ভর করে 20 টাকা থেকে শুরু করে 200 টাকা পর্যন্ত তিনি করে থাকে।
  • জে-আইটি (jit.com.bd) – এর আর্টিকেল বন্ধুদের সাথে শেয়ার করে, বা বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করে ইনকাম করা যায়। আপনি যদি এই ওয়েবসাইটের একটি আর্টিকেল বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করেন আপনার শেয়ার করা আর্টিকেলে যত ভিজিটর আসবে, প্রত্যেক ভিজিটের জন্য আপনাকে পয়েন্ট দেওয়া হবে।
  • এছাড়াও এই ওয়েবসাইটের রেফারেল লিংক বন্ধুদের সাথে শেয়ার করে আয় করা যায়। যদি আপনার শেয়ার করা লিংক থেকে কোন ইউজার রেজিস্ট্রেশন করে তাহলে 10 টাকা থেকে শুরু করে 100 টাকা পর্যন্ত দিয়ে থাকে।
  • এছাড়াও জে-আইটি (jit.com.bd) তে রয়েছে টাস্ক পুরন করে আয় করার ব্যবস্থা। একজন নতুন ইউজার আর্টিকেল শেয়ার করে এবং সহজ পূরণ করে প্রতিদিন জে-আইটি (jit.com.bd) থেকে আয় করতে পারবে।

আপনি যদি আইটি (jit.com.bd) থেকে আয় করতে চান তাহলে প্রথমেই তাদের নীতিমালা গুলো ভালোভাবে পড়ে নিতে হবে। তারপর নীতিমালা অনুযায়ী আয় করতে থাকবেন যত ইচ্ছা তত।

জে-আইটি (jit.com.bd) তে রেজিষ্টার করুন।

Earnopedia থেকে ইনকাম করুন-

মাসের হাতখরচ এবং এমবি এর খরচ সহ বাড়তি আয় করুন Earnopedia থেকে। কোন রকম ইনভেস্ট ছাড়াই আর্নোপেডিয়া থেকে ইনকাম করতে পারেন। এখানে কাজগুলোর মধ্যে আপনি পাচ্ছেন ভিডিও দেখা, paid to click, paid survey, ad wallz, fb instagram post liking, commenting ইত্যাদি কাজ করার সুযোগ।

এখানে আপনি প্রতিদিন ১৫ টি ভিডিও দেখতে পারবেন। আর এর জন্য আপনাকে দেয়া হবে.75$ বাংলাদেশি টাকায় যা হয় প্রায় ৬৫ টাকা। অপরদিকে paid to ক্লিক এর জন্য প্রতিদিন আপনাকে দেয়া হবে. 25$ । এর মানে প্রতিদিন আপনার ইনকাম দাড়াচ্ছে ৮০ টাকা।

মাস শেষে যা হবে ২৪০০ টাকা এর মতো। আর পেমেন্টের বিষয়ে বলতে গেলে আপনি আপনার বিকাশের মাধ্যমেই টাকা তুলতে পারবেন। এখানে ৩০দিন কাজ করার পরই আপনি টাকা তোলার সুযোগ পাবেন। টাকা আপনি মাসের ১৪-১৫ তারিখেই তুলতে পারবেন।

Grathor থেকে ইনকাম করুন-

Grathor বর্তমানে অন্যতম একটি অনলাইন ইনকাম প্লাটফর্ম। আর সবচেয়ে সেরা সুবিধাটি কি জানেন? আপনি এখান থেকে টাকা উইথড্রো করতে পারবেন এবং তা নিতে পারবেন নিজের বিকাশে।
গ্রাথোর একটি এমন একটি ওয়েবসাইট যা আপনার জন্য ইনকামের সুযোগ রাখছে শুরু থেকেই। তবে এখানে কাজ বলতে শুধু একটিই রয়েছে আর তা হলো কন্টেন্ট রাইটিং অর্থাৎ আপনাকে যেকোন বিষয় নিয়ে লেখালেখি করতে হবে। বিস্তারিত জানতে আজই তাদের ওয়েবসাইটই ঘুরে আসতে পারেন।

Ezzy Earn থেকে আয় করুন-

Ezzy Earn অ্যাপটির নাম হয়তো আপনার আমার সবারই জানা। তবে জানেন কি এর মাধ্যমেও মাসের হাত খরচ চালিয়ে দিতে পারেন খুব সহজেই। হ্যা, Ezzy Earn এর মাধ্যমে অনলাইনে আয়ের কথা বলছি। আমরা প্রায়শই অনেক ফ্রি- অ্যাপ দেখে থাকি যা আমাদের ইনকাম এর কথা বলে তবে সেখান থেকে কিন্তু সন্তুষ্টি এর মতো ইনকাম হয় না।

কারণ তার অ্যামাউন্ট বা পরিমাণটা খুবই কম। এ দিক দিয়ে Ezzy Earn কিন্তু অনেকটাই এগিয়ে কারণ এর মাধ্যমে প্রতিদিনই যা ইনকাম করবেন তা আপনার সন্তুষ্টির জন্য যথেষ্ট হবে। তবে এখানে কাজ করতে গেলে শুরুতেই আপনাকে ১৬০০৳ দিয়ে অ্যাকাউন্ট এক্টিভ করে নিতে হবে। কি ঘাবড়ে গেলেন? না ঘাবড়াবেন না।

এই ১৬০০৳ কয়েকদিনের মধ্যেই আদায় করে নিতে পারবেন। কেননা এখানকার ডেইলি আর্নিং প্রোগ্রামে থাকছে ১ ডলার থেকে ২ ডলার পর্যন্ত আয়ের বিশাল সুযোগ।

ইনকাম টিউনস থেকে আয় করুন-

হ্যা,বাংলাদেশি এই টেক ব্লগের কথা আপনি হয়তো শুনেছেন। তবে একটু ঘাটাঘাটি করলেই এর মূল বিষয়টি আপনার সামনে পরিষ্কার হয়ে যাবে। ইনকাম টিউনস যেহেতু দেশি সাইট তাই আপনি এখান থেকে টাকা বিকাশেই নিতে পারবেন। আর তাদের টাকার বিষয় কিছুটা এমন-

প্রতি পোস্টে আপনি তাদের কাছে পাবেন ১০ টাকা। এতেই কিন্তু শেষ নয়। এর পাশাপাশি আপনার জন্য থাকছে রেফারেল বোনাস। সেটি কেমন?
এটি হচ্ছে আপনি অন্যকে এখানে সাইন আপ করালে একটা অ্যামাউন্টের টাকা পাবেন। প্রতি রেফারেলের থাকছে ৫ টাকা। আর কেউ যদি আপনার রেফারেল লিংকে ক্লিক করে সাইন আপ নাও করে তাও পাবেন একটা অংকের টাকা।

মোট কথা আপনার হাত খরচ কিন্তু দিব্যি চলে যাবে এর মাধ্যমে। পাশাপাশি বাড়তি খরচও চালাতে পারবেন।
বিস্তারিত পাবেন ইনকাম টিউনস ওয়েবসাইটিতে।

হৈচৈ বাংলাতে আর্টিকেল লিখে আয় করুন-

হ্যাঁ, বর্তমানে অন্যতম ও জনপ্রিয় একটি কাজ হলো কন্টেন্ট রাইটিং বা আর্টিকেল রাইটিং। আর উপরোক্ত কাজগুলোর মাধ্যমে শুধু হাত খরচ জোগাতে পারলেও এর মাধ্যমে কিন্তু মাসে ১০০০০ টাকার উপরে আয় করতে পারবেন সহজেই। আর পেমেন্ট মেথডের কিংবা গ্যারান্টির কোনো কমতি নেই। তারা আপনাকে টাকা দিতে আটকাবে না।

আপনি যত লিখতে পারবেন আপনার ইনকাম তত বেশি হবে। আর আশ্চর্য হওয়ার বিষয় কি জানেন এখানে আর্টিকেল পিছু আপনি পাচ্ছেন ১০০ টাকা করে যা সত্যি প্রশংসনীয় এবং অনন্যও বটে। সুতরাং স্থায়ীভাবেই যদি কোথাও আয় করতে চান তাহলে আমি বলব হৈচৈ এ লিখতে শুরু করেন।

Shareyt থেকে আয় করুন-

শেয়ার ওয়াইটি নামটি দ্বারাই এর কাজ সমন্ধে আপনার একটা ধারণা তৈরি হয়ে যেতে পারে। শেয়ার ওয়াইটি মূলত সোশ্যাল মিডিয়া ভিত্তিক একটি সাইট। আর এর কাজগুলোও কিছুটা ঐ কেন্দ্রিক। এখানে যে কাজগুলো রয়েছে তা মূলত ফেসবুক পোস্টে লাইক, কিংবা কমেন্ট বা শেয়ার করা। আর এরকম কিছু কাজের মাধ্যমেই মাসের শেষে একটা বড় অংকের মুখ দেখতে পারবেন।

কাজ কি ডট কম থেকে আয় করুন-

ফ্রি-ল্যান্সিং কথাটি আপনি হয়তো শুনে থাকবেন। আর এ সম্পর্কে না জেনে থাকলে আমাদের পূর্বের পোস্ট ফ্রি-ল্যান্সিং থেকে আয় করুন পড়ে আসতে পারেন। তো যে বিষয়টি নিয়ে বলছিলাম তা হলো কাজ কি থেকে আয়। ফ্রি-ল্যান্সিং নিয়ে ঘাটাঘাটি করে থাকলে আপনি হয়তো নামটির সাথে অনেকটাই পরিচিত। হ্যাঁ, কাজ কি হচ্ছে বাংলাদেশি একটি মার্কেটপ্লেস যেখানে আপনি বিভিন্ন কাজের সন্ধান খুব সহজেই পেয়ে যেতে পারেন।

কাজ কি ডট কম আপনাকে সুযোগ দিচ্ছে দেশি ক্লায়েন্টের সাথে কাজ করার। আর তাই আপনি তাদের কাছে সবচেয়ে বড় যে সুবিধাটি পাবেন তা হলো কোনো ক্লায়েন্ট কাজ দিলে তার কাজ শেষ করে বিকাশেই পেমেন্ট নিতে পারবেন। এখানকার কাজগুলো কিছুটা অন্যরকম অর্থাৎ প্রোফেশনলা লেভেলের হয়ে থাকে। তবে আপনি আপনার ইচ্ছামতো কাজ খুঁজে নিতে পারেন খুব সহজেই।

আর পেমেন্ট নিয়ে কখনোই সন্দেহ পোষণ করার কোনো চান্সই পাবেন না কেননা কাজ কি ডট কম আপনি যার সাথে কাজ করছেন তার সাথে পেমেন্টের বিষয়টি ভেরিফাই করে রাখে। তাই নিশ্চিন্ত থাকতে পারেন কাজ কি ডট কমের এই কাজগুলোর বিষয়ে।

অর্ডিনারী আইটিতে কন্টেন্ট রাইটিং এর কাজ করে আয় করুন-

কন্টেন্ট রাইটিং এর বিষয়টি আমি হৈচৈ এর বেলাতেও বলেছি। এখনো বলছি। হ্যাঁ, অর্ডিনারী আইটি আপনার আমার মতো বহু কন্টেন্ট রাইটার নিয়োগ দিচ্ছে তাদের ওয়েবসাইটে। আর বাংলাদেশি সাইট হওয়ার সুবাদে আপনি কিন্তু আপনার পেমেন্টটি বিকাশে নিতে পারবেন। যা আসলেই একটা গুরুত্বপূর্ণ দিক। তবে এখানে কাজ করতে গেলে আপনাকে প্রথমে একটি কোর্স করে নিতে হবে। যা আমি মনে করি আপনার করা উচিত এর মাধ্যমে আপনার কাজের অভিজ্ঞতা তৈরি হবে।

তবে এই কোর্সটি করতে আপনাকে মাত্র ১০৫০ টাকা খরচ করতে হবে। যা প্রথম মাসের বেতনের সাথেই ফেরতযোগ্য। আর সবচেয়ে মজার বিষয় কি জানেন এই ওয়েবসাইট থেকে মাসে ৮০০০ টাকার একটা ফিক্সড অ্যামাউন্টের টাকা মাস শেষে পেতে পারবেন। যা আমি মনে করি আপনার জন্য বেস্ট বা সবচেয়ে ভালো হবে। তবে দেরি কেন ? আজই কোর্সটি কিনে যোগদান করুন।

BD Cash অ্যাপ এর মাধ্যমে ইনকাম করুন-

হ্যাঁ, ঠিকই শুনেছেন দেশি অ্যাপ বিডি ক্যাশ এর মাধ্যমেও আপনি টাকা ইনকাম করতে পারেন। প্রশ্ন করতে পারেন কিভাবে?
হ্যাঁ তাই বলছি। বিডি ক্যাশের মাধ্যমে আপনি কয়েকটি উপায়ে আয় করতে পারবেন। আর এখানকার অফারও থাকছে ধুমধারাক্কা। বিডি ক্যাশ অ্যাপের মাধ্যমে যে কয়েকটি উপায়ে আয় করতে পারবেন তা হলো-

স্পিন করে আয়-

হ্যাঁ, স্পিন করেই আপনিও আয় করতে পারেন দিনে ৫০ টাকা থেকে ৭০ টাকা পর্যন্ত।
ছোট টাস্ক কমপ্লিট করে আয়- আপনাকে এখানে কিছু ছোট্ট ছোট্ট কাজ করতে দেয়া হবে। আর এই কাজ সম্পন্ন হলেই কিন্তু আপনি আপনার পেমেন্ট নিতে পারবেন।

তো বিডি ক্যাশ অ্যাপে মূলত এই দু ধরনের আর্নিং আপনি করতে পারবেন। তবে পাশাপাশি থাকছে রেফারেল সিস্টেম যার মাধ্যমে সহজেই অন্যকে অ্যাপটি ডাউনলোড করিয়ে ইনকাম করতে পারবেন। আর আপনার আর্নিং বা ইনকামের টাকা তারা আপনাকে আপনার বিকাশেই দিবে। তবে কিছু বিষয় আপনাকে মেনে চলতে হবে আর তা হলো-

  • এক ফোনেই অধিক অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করতে পারবেন না।
  • এটি চালানোর জন্য কখনোই ভিপিএন নয়।
  • অ্যাপটি ডাউনলোড করার পর একে ৫ স্টার রিভিউ দিয়ে দিন।

অনলাইনে আয় পেমেন্ট বিকাশ এখন আজগুবি নয়। আসলেই তা সত্যি বিষয়!!

হ্যাঁ, অনলাইনে কাজ করে এখন আপনি টাকাটি পেতে পারেন আপনার বিকাশেই। বিষয়টা এক্কেবারেই সত্য। তবে এখানে কিছু বিষয় রয়েছে তা হলো বিকাশ পেমেন্টের সাইটগুলো যেহেতু বেশিদিন স্থায়ী হয় না তাই আপনাকে একটি স্থায়ী সাইটের খোজে বের হতে হবে। আর আমাদের উপরোক্ত বিষয় বা স্থানগুলো তাকে কেন্দ্র করেই।

আপনার একটু স্বস্তির জন্য বলি- জে-আইটির অ্যাডমিন বলেন সাইট যতদিন থাকবে আপনিও ততদিন সেখানে লিখতে পারবেন। অর্থাৎ এটা স্থায়ী। আর বাকি সাইটগুলোও অনুরূপ। সুতরাং অনলাইনেই যদি নিজের ক্যারিয়ার তৈরি করে নিতে চান তবে এটি হতে পারে আপনার অন্যতম একটি সুযোগ। আর তাই দেরি না করে আজকেই আপনার কাজে লেগে পড়ুন। ধন্যবাদ।

1 thought on “অনলাইনে আয় বিকাশে পেমেন্ট 2021”

Leave a Comment