গ্রাফিক্স ডিজাইন কি? Graphics Design করে কিভাবে আয় করবেন ?

আমরা মুভি কিংবা অ্যানিমেশন সবাই দেখে থাকি| যে কোনো ক্ষেত্রে এরকম কিছু বিষয় থাকে যেখানে গ্রাফিক্স ডিজাইন উপস্থিত। কিন্তু আমরা সেগুলো ব্যবহার করে থাকলেও ভাবি না মূল বিষয় বস্তু নিয়ে। আর অজানার বাহিরে হলেও এটাই সত্য যে Graphics Design এর উপস্থিতি আমাদের জীবন ক্ষেত্রের প্রায় সকল জায়গায়।

একটু খেয়াল করুন। আমরা সকলেই নিশ্চয়ই কোনো পোস্টার বা লোগো ডিজাইন দেখে থাকি। কিংবা আমাদের দৈনন্দিন জীবনে যা ব্যবহার করি যেমন- বই, খাতা, পোশাক-আশাকসহ সকল কিছুর উপরেই নকশা দেখে থাকি। মূলত এর সবই গ্রাফিক ডিজাইন এর অন্তর্গত।

তবে গ্র্যাফিক্স ডিজাইন থেকে যে অনলাইনে আয় করা যায় তা নিয়ে হয়ত আর কারও সন্দেহ নেই। কেননা এটি আমাদের সকলেরই ধারণা হয়ে গিয়েছে যে গ্রাফিক ডিজাইন এর ডিমান্ড বর্তমান আধুনিক বিশ্বে অনেক। কিন্তু সেটি জানলেও অনেকেই হয়ত দ্বিধায় ভুগতে পারে যে সে কীভাবে এই কাজ শুরু করবে। বা আদৌ সে এই কাজে সফল হতে পারবে কি না।

আপনাদের এই সকল সমস্যার সমাধান নিয়ে আজ আমি উপস্থিত হয়েছি। আপনারা আমাদের এই গাইডটি সম্পূর্ণ আয়ত্তে আনুন এবং আমাদের বিশ্বাস আপনাদের কখনো আর হতাশ হতে হবে না। এবং কীভাবে আপনি গ্র্যাফিক্স ডিজাইন শুরু করতে পারেন সেটিই আজ আমাদের মূল প্রতিপাদ্য বিষয়।

চলুন জেনে নিই গ্রাফিক্স ডিজাইন কী?

গ্রাফিক্স ডিজাইন কি? কিভাবে শুরু করবেন
গ্রাফিক্স ডিজাইন কি? কিভাবে শুরু করবেন

গ্রাফিক্স ডিজাইন কী?

গ্রাফিক্স ডিজাইন হলো ভিজুয়াল কমিউনিকেশন এর একটি মাধ্যম যেখানে টাইপোগ্রাফি, আইকনোগ্রাফি, ফটোগ্রাফি এবং ইলাস্ট্রেশান এর ব্যবহার করা হয়। এই ফিল্ডটিকে একটি ভিজুয়াল কমিউনিকেশন বা কমিউনিকেশন ডিজাইন এর একটি ক্ষেত্র বিবেচনা করা হয়।

তবে অনেকাংশেই Graphics Design কে একটি ইউনিক এবং আলাদা ক্ষেত্রই ধরা হয়।

তাহলে আপনাদের সকলেরই একটি সাধারণ প্রশ্ন হতে পারেই যে কীভাবে গ্রাফিক্স ডিজাইন এর সহায়তা নিয়ে অনলাইন থেকে আয় করবেন। তাই আর দেরি না করে চলুন জেনে আসি গ্রাফিক ডিজাইন এর সাহায্যে অনলাইন থেকে আয়ের কিছু উপায় সমূহ-

আরও পড়ুনঃ

টেমপ্লেট তৈরি এবং সেল করা

গ্রাফিক্স ডিজাইনারদের মতে কোনো রকম তর্ক বিতর্ক ছাড়াই বলা যায় যে, এটি  অনলাইন থেকে আয়ের একট অন্যতম লাভজনক উপায়। আপনি আপনার Graphics Design এর স্কিল কাজে লাগিয়ে টেমপ্লৈট তৈরি করুন। এবং সেগুলি মার্কেট প্লেস করুন ।

এমন অনেকে ছোট ছোট বিজনেস ব্যবসায়ী আছেন যারা কোনো রকম গ্রাফিক্স ডিজাইন এর কাজে নিয়োজিত নন। কিংবা Graphics Design সম্পর্কে কোনো সাধারণ জ্ঞান রাখে না। তবে তারা গ্রাফিক্স ডিজাইন এরই সম্পর্কিত এমন কোনো প্রডাক্ট সেল করে থাকে।

তাই আপনি বেশ সহজেই টেমপ্লেট তৈরি করে সেগুলো সেল করতে পারেন। আপনি ই-বুক , পোস্টার কিংবা লোগো এর টেমপ্লেট বানিয়ে বেশ সহজেই অনলাইনে প্রচার করতে পারেন। আর নিজস্ব উদ্দেশ্যে আপনি টেমপ্লেট বানালে সেটিকে মার্কেট প্লেসে মার্কেটিং এর কাজেও ব্যবহার করতে পারেন।

ওয়ার্ক শপের সাহায্যে জ্ঞান কে শেয়ার করা

আপনি যদি মনে করেন যে আপনি গ্রাফিক্স ডিজাইন নিয়ে যথেষ্ট পারদর্শী কিংবা Graphics Design সম্পর্কে সম্পূর্ণ দক্ষতা আপনার রয়েছে ,তাহলে আপনি অনলাইনে ট্রেইনার শিপ প্রোগ্রাম চালু করতে পারেন।

ডিজিটাল মার্কেটিং এ এমন অনেক প্লাটফর্ম ই রয়েছে যেখানে দক্ষরা তাদের জ্ঞান এবং স্কিলকে সেল করে। অর্থাৎ  অনেকেই আছে যারা গ্রাফিক্স ডিজাইন নিয়ে অনভিজ্ঞ। কিন্তু তারা এ বিষয়ে পারদর্শী হতে চায়। আর সে জন্যই অনেকৈ অনলাইনে ট্রেইন দিয়ে থাকে। এবং আপনিও এই কাজে নিয়োজিত হতে পারেন। যা আপনাকে অপলাইন থেকে আয়ের সুযোগ করে দিবে।

স্টিকার সেলিং-

বর্তমান সময়ে টিকটক কিংবা লাইকি তে বেশ জনপ্রিয়তার ফলে স্টিকার এর ব্যবহার বেশ বেড়ে গিয়েছে। যদিও বা এই দুটি সেক্টরে বেশ নিম্ন মানের ইনগেজমেন্ট দেখা যায়। তবে ফেসবুক ইন্সটাগ্রাম কিংবা মেসেন্জার ইত্যাদি প্লাটফর্মে তো এগুলোর ব্যবহার আছেই।

তাই আপনি গ্রাফিক্স ডিজাইন এর সাহায্যে এই বিভিন্ন স্টিকার বানাতে পারেন। এবং সেগুলো উপরের সংশ্লিষ্ট উদ্যোক্তাদের কাছে সেল করতে পারেন। এবঃভং নিঃসেন্দহে এর মাধ্যমে আপনি অনলাইন থেকে আয়ের ঐকটি বড় ক্ষেত্র পেয়ে যাবেন।

একজন ডিজাইন কনসালটেন্ট হওয়া-

গ্রাফিক্স ডিজাইন এর সহায়তা নিয়ে আপনি যদি বেশ বড় আয় করতে চান তাহলে মাত্র আপনার দিনের এখ থেকে দুই ঘন্টা ব্যয় করে খুব সহজেই একজন ডিজাইন কনসালটেন্ট হয়ে অনলাইনে আয় করতে পারেন।

এটি তেমন কঠিন কোনো কাজ নয়। আপনি আপনার Graphics Design ক্যারিয়ার এর জ্ঞান কে শুধু অন্যের সামনে তুলে ধরবেন। অর্থাৎ যারা নিজস্ব বিজনেস রানিং এর জন্য সঠিক মতামত ও পথ জানতে চাইছে তাদের বেশ সহজেই আপনি এই জ্ঞান দিতে পারেন এবং তাদেরকে বিজনেস এর সঠিক ধারণা দিয়ে অনলাইনে আয় করতে পারেন।

ফন্ট ডিজাইন এবং সেলিং-

এই কাজটি অনেকটাই স্টিকার সেলিং এর মতো। আপনি নিশ্চয়ই মাইক্রোসফট অফিস ওয়ার্ডে কাজ করেছেন। কিংবা আপনার স্মার্টফোনেও বিভিন্ন স্টাইল এর ফন্ট দেখেছেন। তবে হয়ত জানেন না যে এই ফন্ট তৈরির পেছনে যে বিষয়টি কাজ করে তা হলো গ্রাফিক্স ডিজাইন। মাইক্রোসফট অফিসে তো শত শত ফন্ট দেখা যায়। এছাড়া বিভিন্ন কী বোর্ড অ্যাপেও এরকম বিভিন্ন ফন্ট এর ব্যবহার দেখা যায়।

এগুলো মূলত কোনো লেখাকে আকর্ষণীয় করে তুলতে সহায়তা করে। আর তাই মার্কেটে এগুলোর ডিমান্ড বেশ। আপনি Graphics Design এ পারদর্শী হয়ে নিজস্ব সৃজনশীলতা কাজে লাগিয়ে বিভিন্ন স্টাইল এর ফন্ট তৈরি করতে পারেন এবং শেষে সেগুলো সেল করতে পারেন। যার ফলে গ্রাফিক্স ডিজাইন এর সাহায্য নিয়ে অনলাইন থেকে মোটা অঙ্ক আয় করতে পারবেন।

প্রি-মেড লোগো ডিজাইন এবং মার্কেটিং-

বিভিন্ন কোম্পানি বা সংস্থা তাদের কোম্পানির জন্য একটি ইউনিক সিম্বল চায়। এবং এই সিম্বলটি মূলত কোনো ইউনিক লোগো হয়ে থাকে। তাই গ্রাফিক্স ডিজাইন যেহেতু বেশ ডিমান্ডিং এসব কোম্পানি তাদের লোগো এর জন্য দক্ষ এবং অভিজ্ঞ গ্রাফিক্স ডিজাইনার খুঁজে থাকেন।

এক্ষেত্রে আপনি বেশ সহজেই অনলাইন থেকে আয়ের উৎস পেয়ে যাবেন। যেখানে আপনার Graphics Design এর জ্ঞান কে কাজে লাগিয়ে বেশ ইউনিক লোগো তৈরি করে সেগুলো বিভিন্ন কোম্পানির কাছে সেল করাতে পারেন। এবং এর মাধ্যমে আয়ের পথ পেয়ে যাবেন।

7. একজন ফ্রিল্যানসার রূপে ক্লায়েন্ট এর সাথে কাজ করুন:
বর্তমানে গ্রাফিক্স ডিজাইন একটি আলাদা জগৎ তৈরি করেছে। আপনি বিভিন্ন ফ্রিল্যানসিং ওয়েবসাইটে গ্রাফিক্স ডিজাইন সম্পর্কিত অনেক কাজ খুঁজে পাবেন। এবং সেগুলো সার্চ করে একজন ক্লায়েন্ট এর সাথে যোগাযোগ করুন এবং সে তার কাজ আপনাকে দিয়ে দিবে।

পরবর্তী তে আপনি যদি তার কাজটি ভালোভাবে করতে পারেন এবং আপনার কাজে সেই ক্লায়েন্ট যদি সন্তুষ্ট হয়ে থাকে তাহলে তার সাথে একটি ভালো যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়ে তুলুন। এবং এর পাশাপাশি আপনি তার সাথে দীর্ঘ মেয়াদি কাজের পরিকল্পনা গঠন করতে পারেন। যা আপনাকে একজন গ্রাফিক্স ডিজাইনার ফ্রিল্যানসার রূপে  অনলাইন থেকে আয়ের সুযোগ করে দিবে।

সোশ্যাল মিডিয়া কন্টেন্ট ডিজাইন-

আমরা বর্তমানে অধিকাংশ অবসর সময় সোশ্যাল মিডিয়া তে কাটিয়ে থাকি। তবে যারা এই সোশ্যাল মিডিয়ার রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বে নিয়োজিত তাদের কিন্তু অবসর নেই  কেননা প্রতিনিয়ত তাদের  সোশ্যাল মিডিয়াএর ডেভেলপমেন্ট নিয়ে কাজ করতে হয়।

একজন গ্রাফিক্স ডিজাইনার হিসেবে আপনি বেশ সহজেই কোনো একটি সোশ্যাল মিডিয়ার ডিজাইন তৈরি করতে পারেন। তবে এটি যে শুধু সোশ্যাল মিডিয়ার ক্ষেত্রে করতে পারবেন তা মোটেই নয়। বিভিন্ন ওয়েবসাইটের ভিতরের ডিজাইন নিয়েও আপনি এ কাজ করতে পারবেন। তাই Graphics Design এর দক্ষতা কাজে লাগিয়ে আপনি এসব সাইটের কন্টেন্টস গুলি ডিজাইন করতে পারবেন। যা আপনাকে গ্রাফিক্স ডিজাইনের সাহায্যে অনলাইন থেকে আয়ের বড় সুযোগ করে দিবে।

কমিকস এবং নভেল ডিজাইন-

শিশুদের মাঝে কমিকস বই পড়তে কে ই না ভালোবাসে। যেখানে কোনো একটি প্লট নিয়ে কিছু হাস্য রসালো মূলক কন্টেন্ট লিখা হয়। তবে যতটা না শিশুরা কমিকস পড়ে মজা পায় তার থেকে বেশি  মজা পায় তাদের পাশে আকানো বিভিন্ন ছবি গুলো দেখে।

আর এই ছবিগুলোর কনসেপ্ট মূলত গ্রাফিক্স ডিজাইনের হাত ধরেই আসে। অর্থাৎ কমিকস এর চিত্র গুলো তৈরি হয় গ্রাফিক্স ডিজাইনের মাধ্যমে। এছাড়া নভেল বুক এর কভার পেইজ কিংবা ভেতরের কন্টেন্ট গুলিতে বিভিন্ন চিত্র থাকে। আর একজন গ্রাফিক্স ডিজাইনার হয়ে বেশ সহজেই আপনি এগুলোর কনসেপ্ট তৈরি করে সেল করতে পারেন।

মারচেনডাইজ বিজনেস-

বর্তমানে মার্চেনডাইজ বিজনেস অনেক জনপ্রিয়। এখানে মূলত বিভিন্ন টি-শার্ট, শার্ট বা এই রিবেটেড পণ্য সেল করা হয়। তবে ভাবতে পারেন এগুলোর সাথে আবার Graphics Design কোথা থেকে এলো?

একটু গভীরভাবে ভাবুন। আপনি যে টি শার্ট গুলো পড়ে থাকেন সেখানে নিশ্চয়ই কোনো না কোনো চোখ রাঙানো ডিজাইন থাকে। আর এখানেই গ্রাফিক্স ডিজাইন কাজ করে থাকে। বিভিন্ন টি শার্ট এর পেছনে বা সামনে যে ডিজাইন গুলো থাকে সেগুলো মূলত প্রথমে Graphics Design এর মাধ্যমে কম্পিউটার এর সাহায্যে এটি ধারণি নেয়া হয়। এবং পরবর্তী তে সেই ধারণা থেকেই সেটিকে বাস্তবে রূপ দেয়া হয়।

তাই আপনি এসব মারচেন্ডাইজ অরগানাইজেশন যেগুলো এগুলো পণ্য সেল করে থাকে তাদের কাছে আপনার ডিজাইন তুলে ধরতে পারেন। এমনকি তাদের সাথে দীর্ঘদিন এক হয়ে কাজ করতে পারেন। যা আপনাকে গ্রাফিক্স ডিজাইন এর সাহায্যে অনলাইন থেকে আয়ের সুযোগ করে দিবে।

গ্রাফিক্স ডিজাইন থেকে আয়ের জন্য আপনাকে অনেক স্কিল সমৃদ্ধ হতে হবে। তবে একবার আপনি যদি আপনার স্কিলকে আয়ত্তে আনতে পারেন তাহলে আর কোনো চিন্তা নেই। কেননা মার্কেট প্লেসে Graphics Design অনেক ডিমান্ডফুল। এবং আপনি যে কোনো ক্ষেত্রেই গ্রাফিক্স ডিজাইন এর কাজ খুঁজে নিতে পারবেন ।

পরিশেষে-

আমরা আপনাদের সামনে গ্রাফিক্স ডিজাইন এর সাহায্যে অনলাইন থেকে আয়ের কিছু ক্ষেত্র গুলি তুলে ধরেছি। আশা করি এর দ্বারা আপনারা যথেষ্ট সাফল্য আনতে পারবেন।

তাই আপনাদের মূল্যবান মতামত গুলো কমেন্ট বক্সে আমাদের জানাতে ভুলবেন না!

Leave a Comment